আমানউল্লাহ কলেজ সভাপতিকে অবাঞ্ছিত ঘোষনা সাদ্দাম হোসেন বাপ্পি’র মৃত্যুতে মোগ সুন্দার বরিশাল’র গ্রুপ পরিবারের শোক বরিশালে ওএমএস’র চাল বিতরণ জনপ্রিয় ফেসবুক গ্রুপ মোগ সুন্দার বরিশাল এর ৪র্থ বর্ষপূর্তি ও আন্দন ভোজন অনুষ্টান অনুষ্ঠিত বরিশালে কীর্তনখোলা নদীতে কোস্টগার্ডের অভিযানে ১হাজার মিটার জাল জব্দ চরবাড়িয়ায় ইউনিয়নে উপনির্বাচনে বিএনপির একক প্রার্থী মাসুদ হোসেন এগিয়ে ১০নং ওয়ার্ড আ-লীগের সাবেক সভাপতি এ্যাড. হুমায়ুন চৌধুরী প্রিন্স আর নেই, ওয়ার্ড আ-লীগের শোক নতুনধারার ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশ ও কুশপুত্তলিকা দাহ বরিশালে বেপরোয়া মটর চালিত রিক্সা, প্রতিদিন ঘটছে দূর্ঘটনা প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়া ও উচ্চতর তদবিরে নগর দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী সেলিম-সালাম

আবারো সোহাগ বাহিনীর অত্যাচারে বেলতলায় নিজ বসতিতে যেতে পারছে না সংখ্যালঘু পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ আবারও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বরিশালের বেলতলা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে লিপ্ত উত্তর পলাশপুরের বাসিন্দা সোহাগ হাওলাদার। মাদক মামলায় জেল খাটা সাজা প্রাপ্ত এই সোহাগ এবার ভোল পাল্টে এলাকায় নিজস্ব একটি বাহিনী তৈরী করে লিপ্ত হয়েছে সন্ত্রাসী কর্মে। সম্প্রতি এক লংখ্যা লঘু পরিবারের বসত ঘর ও দোকান জোড় পূর্বক দখলে নেয়ার পায়তারা শুরু করেছে। এমনকি ওই পরিবারের কাছে ৫ লাখ টাকা চাদা দাবী করেছে সে। যা না পেয়ে গত মাসে ওই বসত ঘর ও দোকানে ভাংচুর চালায় সোহাগ ও তার দলবল। সোহাগের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করেও থানা পুলিশ ও স্থাণীয় জনপ্রতিনিধির কাছে গিয়েও সুবিচার পাচ্ছে না ভুক্তভোগী পরিবারটি। এমতাবস্থায় নিজ বসত ঘরে যেতে পারছে না তারা।

মামলার নথি ও ভুক্ত ভোগী পরিবারটির পক্ষ থেকে দায়ের করা একাধিক অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালে বেলতলা খেয়াঘাট সংলগ্ন তিন রাস্তার মোড়ে চর আবদানী মৌজার

মৃত কাঞ্চন আলী হাওলাদারের স্ত্রী ও দুই ছেলের অংশের সাড়ে ৩ শতক জমি যৌথ ভাবে ক্রয় করেন নগরীর বগুড়া রোড খন্দকার মঞ্জিলের বাসিন্দা ছবি চৌহান ও মন্তু লাল কর্মকার। পরে নিজ জমিতে একটি আধা পাকা ঘর ও একটি দোকান নির্মান করেন ছবি চৌহানের স্বামী বিপ্লব চৌহান। ২০১৮ সালে হঠাৎ ক্রয় কৃত ওই জমিতে নিজের অংশ রয়েছে বলে দাবী করে সোহাগ। সোহাগের ভাইয়েরা স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও বিপ্লব চৌহান জমি মাপের প্রস্তাব দিলে তাতে রাজি না হয়ে জোড় জবস্তি শুরু করে সোহাগ। বিষয়টি এক পর্যায়ে জটিল আকার ধারন করলে বিসিসির ৫ নং ওয়ার্ডের তৎকালীন কাউন্সিলর মাইনুল ইসলাম শালিস করে সোহাগ কে ৭০ হাজার টাকা দিয়ে দেওয়ার নিমিত্তে এর ফয়সালা করে দেন। পরে শালিস অনুযায়ী সোহাগ কে ৭০ হাজার টাকা দিয়ে দেন অন্যান্য ওয়ারিশরা। মাদকাসক্ত সোহাগের সেই টাকা ফুড়িয়ে গেলে আবার ওই জমি দখল করার কথঅ বলে টাকা দাবি করে এবং বিপ্লব চৌহানকে তার ক্রয়কৃত জমিতে যেতে বাধা প্রদান করে। শেষ মেস সোহাগের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে বরিশাল অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্টেট আদালতে একটি মামলা করেন অপর মালিক মন্তু লাল কর্মকার। মামলার ফলে আদালত ওই জমিতে স্থিতি অবস্থা জারি করে। ২০১৮ সালের ২৩ নভেম্বর কাউনিয়া থানার এএসআই আবদুল হালিম বিরধীয় ওই জমিতে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় আছে মর্মে আদালতে একটি রিপার্টও দাখিল করেন। কিন্তু তারপরও সোহাগের ভয়ভীতিতে ওই জমিতে যেতে পারেননি বিপ্লব চৌহান ও মন্তু লাল কর্মকার। সর্ব শেষ গত ৮ আগস্ট সন্ধায় পূর্বের দাবী করা ৫ লাখ টাকা না দেওয়ায় ওই জমিতে নির্মান করা বিপ্লব চৌহানের বসত ঘর ও দোকান ভাংচুর করে সোহাগ ও তার দলবল। খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে হাজির হলে বিপ্লব চৌহান ও তার স্ত্রীকে মারধর করে নগত টাকা ও স্বর্নালংকার ছিনিয়ে নেয় সোহাগ। এ ঘটনায় বিপ্লব চৌহান কাউনিয়া থানায় এজাহারের আবেদন করলেও তা গ্রহন করেনি থানা পুলিশ। পরে একটি সাধারন ডায়েরী করে সে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জিডির তদন্তকারী কর্মকর্তা কাউনিয়া থানার উপ পরিদর্শক সেলিম বলেন উভয় পক্ষের মধ্যে জমিজমা বিরোধ রয়েছে তবে কোন চাদাবাজি বা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেনি। তাই মামলা নেয়া হয়নি। তারপরও এ মাসের শেষের দিকে এসি স্যার উভয় পক্ষ কে নিয়ে বসবেন বলে জানিয়েছেন। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন বিগত সময়ে কাউনিয়া থানায় সোহাগের নামে র‌্যাবের দায়ের করা একটি মাদক মামলা ছিলো। আরো মামলা আছে কিনা তা সঠিক জানা নেই বলে জানান তিনি।

সোহাগের ভাই সুলতান বলেন, জমির অংশ দাবী করে সোহাগ যা করছে তা সন্ত্রাসী ছাড়া আর কিছুই নয়। কারন ওই জমিতে তার কোন অংশ নেই। তারপরও কাউন্সিলরের সালিশ মেনে ছোট ভাইয়ের দাবী বিবেচনা করে ৭০ হাজার টাকা দিয়েছি। এরপরও সে নতুন করে আবার টাকা নেওয়ার কৌশল হিসাবে এসব করছে। তিনি নাম প্রকাশ করে বলেন সোহাগের এ ধরনের কর্মকান্ডের পিছনে স্থানীয় একাধিক ব্যাক্তির মদদ রয়েছে।

মুজিববর্ষ