১০নং ওয়ার্ড আ-লীগের উদ্যােগে নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জম্মদিন পালিত হুমকি বাস্তবে রুপ, শেষ পর্যন্ত রিয়াজের বাড়ি দখলে নিলো স্বীকৃত হত্যাকারী লিজা! বরিশালে ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে এখনই মাঠ গরম করছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা বরিশাল কর্নকাঠিতে ভেকু মেশিনে নদী খাচ্ছে লোকমানের এম.এস.বি ব্রিকস! ভিডিও সহ বরিশালে পলাশপুরের শুক্কুর ও চাঁদপুরার লিপি জনতার হাতে আপত্তিকর অবস্থায় আটক! অতঃপর বরিশালে ১২কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী ডিবি পুলিশের খাঁচায়! বরিশালে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্কুল ছাত্রের ঘুষিতে মৃত্যু গাড়ি চালকের বাকেরগঞ্জের ভরপাশায় অজ্ঞাত শিশুর মরদেহ উদ্ধার বরিশালে সেই রানা আবারো বেপরোয়া! বরিশালের চরামদ্দী ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচনে সিগন্যাল পেয়েছেন নতুন মুখ মঈন!

ইউপি চেয়ারম্যান লিটন মোল্লা জামিনে মুক্ত

মোঃ শহিদুল ইসলাম::দুই মামলায় বরিশাল সদর উপজেলার ২ নং কাশিপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ কামাল হোসেন লিটন মোল্লা জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। গতকাল বরিবার ১২টার দিকে বরিশাল অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ আহম্মেদের আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেন।উল্লেখ, গত ২২ জুলাই রাতে কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নথুল্লাবাদে গোল্ডেন লাইনের ম্যানেজার শহিদুল ইসলামকে মারধর আর বিএমএফ কাউন্টারে চাদাবাজির ঘটনায় দুইটি মামলায় লিটন মোল্লাকে প্রধান আসামী করা হয়। গত ২৭ আগস্ট আদালতে জামিন চাইতে গেলে আদালত না মঞ্জুর করে আদালতে প্রেরন করেন।গভীর ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে লিটন মোল্লাকে মিথ্যা এই মামলায় প্রায় ৯দিন কারাভোগের পর গতকাল বিকালে জামিনে জেল থেকে ছাড়া পান।লিটন মোল্লা জেল গেট থেকে বের হয়ে প্রথমই বিসিসি মেয়র ও মহানগর আ,লীগে সাধারন সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর সাথে সাক্ষাত করেন।এর পর তিনি তার বাসায় গেলে ইউনিয়নবাসি,বাস মালিক, শ্রমিক ইউনিয়ন সহ নথুল্লাবাদ সংশিষ্ট সকলই ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। ফাকে ফাকে সবই তার সাথে কুশল বিনিময়ও করেন।এ সময় লিটন মোল্লাকে কাছে পেয়ে তারা আবেগ আক্লুত হয়ে পরেন।অন্যএক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। বিসিসি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ ছাড়াও এডভোকেট আফজালুল করিম,ওবাদুল হক সাজু, আনিচ উদ্দিন শহিদ, জুয়েল সহ সকল আইনজীবী কে আন্তারিক শুভেচ্ছা ও অভিন্দন জানিয়ে চেয়ারম্যান লিটন মোল্লা বলেন,আমাকে নিল নকশা করে জেল খাটাইছে, কারা তা করছে আল্লাহ রহমতে আমার রাজনৈতিক অভিভাবক সবই জানেন, আমি কোন দিন ক্ষমতার অপব্যবহার করিনি,আর করবো না,সত্যের বাত্তি টিপটিপ করে জলে, আর অসত্যের বাত্তি দাউ দাউ করে নিভে যায়। একদিন ঠিকই সত্য বেড়িয়ে আসবে ইনশাআল্লাহ।তিনি আর বলেন, সৎ থেকে আমার বাবা আজীবন দলের পিছনে সময় দিছে, তার রক্ত আমার শরীরে, আমিও বাবার মত যতদিন বাচবো দলের জন্য জীবন সংগ্রাম চালিয়ে যাবো,তাতে মৃতু হলেও পিছপা হবো না। তাতে যততই বাধা আসুক না কেনো। আর মিথ্যা মামলাকে তিনি ভয় পান বলে তিনি জানান ।

মুজিববর্ষ