বরিশালে পলাশপুরে রাতের আধাঁরে গৃহবধূর বসতঘরে আগুন! এই বৃষ্টি দিন ! প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক মোঃ শামীম বিশ্বাস বরিশাল জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজমূল হুদার আবেগঘন ঈদ শুভেচ্ছা বার্তা পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে এগিয়ে যাচ্ছেন আ-নেতা তৌহিদুল ইসলাম বাকেরগঞ্জে অসহায় মানুষের পাশে মোঃ শামীম বিশ্বাস বরিশালে সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় ক্রেতা -বিক্রেতাকে জরিমানা পশ্চিম গগনে বাঁকা চাঁদ দেখলেই পবিত্র ঈদুল ফিতরের ঈদ অসহায় কর্মহীনদের পাশে দাড়িয়ে নজর কেড়েছে ছাত্রলীগ নেতা রাসেল

জেলা প্রশাসন ও র‌্যাবের যৌথ অভিযানে ৬ প্রতিষ্ঠানসহ দুই ব্যক্তিকে লক্ষাধিক টাকা জরিমানা

জুবায়ের ইসলামঃ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এর বিকল্প কোন পথ খোলা নেই । জনসাধারণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকারি নির্দেশে দেশ লগডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে কাজ করছে দেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে দেশের প্রতিটি জেলার ন্যায় বরিশালেও কাজ করে যাচ্ছে জেলা প্রশাসন । জেলা প্রশাসক এস,এম অজিয়র রহমান এর দূরদর্শী নেতৃত্বে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে গ্রহণ করা হয়েছে সময়োপযোগী কিছু পদক্ষেপ ।

জনসাধারনকে করোনা থেকে নিরাপদ রাখতে নগরীর বিভিন্ন সড়কে করা হয়েছে জীবাণু নাশক স্প্রে । এছাড়াও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রচার প্রচারণা করাসহ মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে হ্যান্ডস্যানিটাইজার, মাস্কসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ।

নিয়মিত বাজার মনিটরিং করাসহ লগডাউন কার্যকর করতে এবং শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে প্রতিদিন নগরীর বিভিন্ন স্থানে জনসমাগম রোধ করতে করা হচ্ছে মোবাইল কোর্ট অভিযান । অপ্রয়োজনীয় দোকান খোলা ও যৌক্তিক কারণ ছাড়া বাহিরে আসলে হুশিয়ারি দেয়া হচ্ছে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেয়ার।

জেলা প্রশাসক এস,এম অজিয়র রহমান এর নির্দেশ লগডাউন কার্যকর ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে ২৩শে এপ্রিল বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেন জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজমূল হুদা।

অভিযানে নগরীর বিভিন্ন স্থানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে জনসমাগম রোধে নজরদারি করা হয় । নগরীর বিভিন্ন এলাকা, বাজার, সড়কের মোড়, চায়ের দোকানে যেখানেই অপ্রয়োজনে দোকান খোলা রেখে জনসমাগম করা হয়েছে সেখানেই অভিযান পরিচালনা করে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। নেয়া হয়েছে আইনি ব্যবস্থা করা হয়েছে জরিমানা।

জেলা প্রশাসনের অভিযানে জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজমূল হুদা সকল জনসাধারণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অপ্রয়োজনীয় দোকান বন্ধ রাখতে নির্দেশ প্রদান করেন এবং যৌক্তিক কারণ ছাড়া জনসাধারণকে বাহিরে আসতে নিষেধ করেন ।

অভিযানের সময় বাজার মনিটরিং করাসহ কয়েকটি টিসিবির পন্য বিক্রির স্পটে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে লাইনে দাঁড়িয়ে পন্য ক্রয় করতে জনসচেতনতা মূলক প্রচারনা করেন । এছাড়াও করোনা প্রতিরোধের বিষয়গুলো প্রচারণার সাথে সাথে ক্রেতাদের মাঝে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাস্ক বিতরণ করেন জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

অভিযানে সরকারি নির্দেশ লগডাউন অমান্য করে অপ্রয়োজনীয় দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার অপরাধে অভিযুক্তদের জরিমানা করা হয়েছে । এছাড়াও অপ্রয়োজনে বাহিরে ঘোরাঘুরি করার অপরাধে ২ব্যক্তিকে অর্থদন্ড প্রদান করেন জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

অভিযান পরিচালনাকালে নগরীর কাঠপট্টি এলাকায় লকডাউন অমান্য করে অপ্রয়োজনে দোকান খোলা রেখে জনসমাগম করায় সোহরাব হোসেনকে ৪০০০ টাকা ও আঃ রহমানকে ৫০০টাকা জরিমানা করা হয়।নগরীর পদ্মাবতী এলাকায় লকডাউন অমান্য করে অপ্রয়োজনে দোকান খোলা রেখে জনসমাগম করায় মোঃ হারুনকে ১৫০০০টাকা ও মোঃ মাজহারুলকে ১০০০০টাকা ও মোঃ আলমগীরকে ২০০০টাকা জরিমানা করা হয় ।

বিসিক শিল্প এলাকায় মাহাদী এন্টারপ্রাইজ উৎপাদনের নামে জায়গা বরাদ্দ নিয়ে গোডাউন গড়ে তোলা এবং স্বাস্থ্যবিধি না মেনে ব্যাপক জনসমাগম করার অপরাধে ৫০০০০টাকা জরিমানাসহ সিলগালা করা হয় । একই অপরাধে সুমা এন্টারপ্রাইজকে ৫০০০০ টাকা জরিমানা করাসহ প্রতিষ্ঠান সিলগালা করা হয় ।
মোঃ জুয়েল নামে ব্যক্তিকে মোবাইল কোর্টের কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করলে তাকে ১০০০টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযান শেষে জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজমূল হুদা বলেন, জেলা প্রশাসক জনাব এস,এম অজিয়র রহমান এর নির্দেশে আমরা নগরীর বিভিন্ন স্থানে জনসমাগম রোধে অভিযান পরিচালনা করেছি ১লক্ষ ৩২হাজার ৫শত টাকা জরিমানা করাসহ দুটি প্রতিষ্ঠান সিলগালা করেছি। জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্রচারণার পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সবাইকে অনুরোধ করেছি । এছাড়াও যৌক্তিক কারণ ছাড়া বাহিরে আসতে নিষেধ করেছি । ভবিষ্যতে যদি কেউ লগডাউন অমান্য করে অপ্রয়োজনীয় দোকান খোলা রাখে এবং বাহিরে ঘোরাঘুরি করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেয়ার হুশিয়ারি প্রদান করেছি।

জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজমূল হুদা আরও বলেন, বার বার অনুরোধ করার পরেও যে সমস্ত মানুষ দোকান খোলা রেখে জনসমাগম করেছে তাদের জরিমানা করেছি ।দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত জনসাধারণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট অভিযানে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সহযোগীতা করেন র‌্যাব–৮ এর এএসপি মোঃ ইফতেখারুজ্জামান ও অন্যান্য সদস্যরা।

এদিকে জেলা প্রশাসনের অভিযানকে স্বাগতম জানিয়েছে সুশীল সমাজ। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ও লগডাউন কার্যকর করতে জেলা প্রশাসন আরও সময়োপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করবে আশা বরিশালবাসীর।

মুজিববর্ষ