করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত নগরীজুড়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে- মেয়র সাদিক পিরোজপুরে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় শিক্ষার্থীর পা ভেঙ্গে দিল বখাটে ভোলা সদর হাসপাতালে করোনা ইউনিটে নেওয়ার সময় রোগীর মৃত্যু গৌরনদীতে এমপি হাসানাত আব্দুল্লাহ’র নিজ অর্থায়নে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শেবাচিমে পিসিআর মেশিন স্থাপনের কাজ পরিদর্শন করেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ছুটি বাড়ল ১১ এপ্রিল পর্যন্ত, আদেশ জারি জেনে নিন তেঁতুলের গুণ সম্পর্কে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ভয়াবহ সঙ্কট তৈরি করেছে করোনা: গুতেরেস ৫৫ বছরের দাদাকে বিয়ে করতে নাতির আত্মহত্যার চেষ্টা! খুব কষ্টকর দুটো সপ্তাহ ও কষ্টের সময় আসছে: ট্রাম্প

নিজের ক্রিকেটে মন দাও : হাফিজকে ধমক পিসিবির

ক্রিকেটে দুর্নীতি নিয়ে বরাবরই সরব থাকেন পাকিস্তানের অলরাউন্ডার এবং সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ হাফিজ। মোহাম্মদ আমির নিষেধাজ্ঞা শেষ করে ক্রিকেটে ফেরার পরও মোহাম্মদ হাফিজ এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন এবং হাফিজের সঙ্গে খেলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন।

এবার আরেকটি যৌক্তিক কারণে একটি বিষয়ে পিসিবির সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করলেন হাফিজ। আর তাতেই পিসিবি থেকে ধমক শুনতে হলো সাবেক এই অধিনায়ককে। পিসিবির প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান সরাসরি হাফিজের প্রতি সতর্কবার্তা উচ্চারণ করে জানিয়ে দিলেন, ‘নিজের ক্রিকেটের প্রতি মনযোগ দিন। অন্য দিকে না তাকালেও চলবে।’

মোহাম্মদ হাফিজের প্রতি ওয়াসিম খান বলেন, ‘কোনটা সঠিক, কোনটা বেঠিক- এসব মতামত দেয়ার চেয়ে নিজের ক্রিকেটের প্রতি মন দিলেই ভালো করবেন আপনি।’

মূলতঃ গন্ডগোলটা বেধেছে শারজিল খানকে নিয়ে। ২০১৭ পিএসএলে ফিক্সিংয়ের দায়ে ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয় শারজিল খানকে। কিন্তু হঠাৎ শর্তহীন এক ক্ষমা চাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গত বছর আগস্টে শারজিল খানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় পিসিবি। যার ফলে এবারের পিএসএলে করাচি কিংসের হয়ে খেলার সুযোগ পান তিনি।

শারজিল খানের প্রতি পিসিবির এমন নমনীয়তা এবং তার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া দেখেই ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন মোহাম্মদ হাফিজ। তার মতে, এই ঘটনার ফলে তরুণ ক্রিকেটাররা ফিক্সিং করতে উদ্বুদ্ধ হবে এবং পাকিস্তানের ক্রিকেট আরও কালিমালিপ্ত হবে।

সম্প্রতি টুইটারে একটি প্রশ্নের জবাবে হাফিজ লেখেন, ‘পাকিস্তানকে প্রতিনিধিত্ব করার ক্ষেত্রে আমাদের কি দারুণ প্রতিভাবান কিছুর চেয়ে সম্মান এবং মর্যাদাকেই বেশি গুরুত্ব দেয়া উচিৎ নয়?’

পিসিবি প্রধান নির্বাহী এ বিষয়টাকেই ভালোভাবে নিতে পারেননি। তিনি এ কারণে মন্তব্য করেন, ‘বর্তমান খেলোয়াড়দের অবশ্যই সোশ্যাল মিডিয়ায় এ ধরনের বক্তব্য দেয়া থেকে বিরত থাকা উচিৎ। অন্য কোনো খেলোয়াড়ের সমালোচনা করা কিংবা কোনো নীতি নির্ধারণী বিষয়ে কথা বলাও উচিৎ নয়।’

মুজিববর্ষ