১০নং ওয়ার্ড আ-লীগের উদ্যােগে নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জম্মদিন পালিত হুমকি বাস্তবে রুপ, শেষ পর্যন্ত রিয়াজের বাড়ি দখলে নিলো স্বীকৃত হত্যাকারী লিজা! বরিশালে ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে এখনই মাঠ গরম করছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা বরিশাল কর্নকাঠিতে ভেকু মেশিনে নদী খাচ্ছে লোকমানের এম.এস.বি ব্রিকস! ভিডিও সহ বরিশালে পলাশপুরের শুক্কুর ও চাঁদপুরার লিপি জনতার হাতে আপত্তিকর অবস্থায় আটক! অতঃপর বরিশালে ১২কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী ডিবি পুলিশের খাঁচায়! বরিশালে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্কুল ছাত্রের ঘুষিতে মৃত্যু গাড়ি চালকের বাকেরগঞ্জের ভরপাশায় অজ্ঞাত শিশুর মরদেহ উদ্ধার বরিশালে সেই রানা আবারো বেপরোয়া! বরিশালের চরামদ্দী ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচনে সিগন্যাল পেয়েছেন নতুন মুখ মঈন!

প্রতিমন্ত্রীকে ব্যবহার করতে বিতর্কিত সেই জাকির মরিয়া!

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশাল মিডিয়ার ছায়াতলে থেকে নানা অপকর্মের জন্মদাতা এবং অভিযোগের প্রেক্ষাপটে আওয়ামী লীগ বহিস্কৃত এসএম জাকির হোসেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীম কাছাকাছি গেলেই এখন দলীয় নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠছেন। এই বিতর্কিত নেতাকে দলীয় কর্মী-সমর্থক ও দায়িত্বশীল নেতারা জাকিরকে সান্নিধ্য দেওয়া থেকে দুরে রাখার দাবি তোলায় এক ধরনের মানসিক চাপ তৈরি হওয়ায় প্রতিমন্ত্রী এখন রীতিমত বিব্রত বলে জানা গেছে। তাছাড়া এসএম জাকিরের কারণে বরিশাল মিডিয়ার বৃহৎ একটি অংশ প্রতিমন্ত্রীর সংবাদ কভারেজ না দেওয়ার মৌন সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়টি ক্রমন্বয়ে স্পষ্ট হয়ে ওঠায় তার দলীয় অনুসারীরা তা আমলে এনে তাকে অবহিত করেছেন। ফলশ্রুতিতে জাকির হোসেনকে আপাতত প্রতিমন্ত্রীর কাছাকাছি আসা থেকে বিরত থাকতে কৌশলী ভঙ্গিমায় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রীর ঘনিষ্ট নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র এই তথ্য নিশ্চিত করে জানায়, তবুও এসএম জাকির সুযোগ পেলেই নানা অজুহাতে বিশেষ করে প্রতিমন্ত্রী বরিশাল সফরে আসলে ভিআইপি কলোনীর পানি উন্নয়ন বোডের ডাকবাংলোয় উপস্থিত হন। এক্ষেত্রে তার সাক্ষাত লাভে কৌশল হিসেবে শহীদ আব্দুর রব বরিশাল প্রেসক্লাব সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক মানবেন্দ্র ব্যাট বলকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিমন্ত্রীর সামনে উপস্থিত হন।

অগ্যতা, ন্যূনতম সম্মানার্থে প্রতিমন্ত্রী তাদের সাক্ষাত দিলেও বেশি সময় দীর্ঘায়িত করেন না। ডাকবাংলোয় সার্বক্ষণিক থাকা এবং দলের একজন নেতা নিশ্চিত করে জানান, জাকির কোন না কোন সুপারিশ নিয়ে প্রতিমন্ত্রীর সামনে উপস্থিত হন। এক্ষেত্রে নিজে নিশ্চুপ থেকে মানবেন্দ্র ব্যাট বলকে দিয়ে তার ইচ্ছা আকাঙ্খা প্রতিমন্ত্রীর সামনে উপস্থাপন করলেও সমসাময়িক কালে ইতিবাচক কোন সাড়া পাচ্ছেন না।

অপর একটি সূত্র জানায়, বরিশাল সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ’র সাথে দ্বন্দ্ব সংঘাতে জাকির নকশাবহির্ভুত যে বাড়ি নির্মাণ করেছে, তা নিয়ে এক অপ্রীতিকর ঘটনায় প্রতিমন্ত্রী সেখানে ছুটে যান এবং সার্বিক নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু ঘটনাপরবর্তী প্রতিমন্ত্রী ঢাকায় ফিরে যাওয়ার পরপরই সিটি মেয়রের কাছে জাকির আনুষ্ঠানিক নত স্বীকার করে সেই দিনের পরিস্থিতির জন্য ক্ষমা চান। এবং বুঝাতে চান তিনি প্রতিমন্ত্রীর শক্তির বলেই অবৈধ স্থাপনা নিয়ে মারমুখি অবস্থান নিতে সাহস নেয়। কিন্তু মেয়র তার এই ব্যাখ্যায় সন্তুষ্টু হতে পারেননি, উপরন্ত তার অবস্থানে অনঢ় থাকেন এবং একপর্যায়ে মহানগর আ’লীগ থেকে জাকিরকে বহিস্কারে আদেশ দেন। সেই জাকির দলছুট নেতা। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য এক সময় জাকির মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ’র অনুসারী হিসেবে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর বিরোধী মেরুতে ছিলেন। কিন্তু তার নানান অপকর্মে সিটি মেয়র তাকে প্রকাশ্যে তার দুয়ারে আসার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। পরবর্তীতে জাকির প্রতিমন্ত্রীর আস্থা অর্জনে সফল হয়ে বেশ হম্বিতম্বি শুরু করেন এবং প্রতিমন্ত্রীর মিডিয়া সংক্রান্ত বিষয়াদী দেখভাল করে বেশ কাছাকাছি যেতে সক্ষম হয়েছিলেন।

সূত্র জানায়, কিন্তু ঘটনাচক্রে জাকির সার্কিট হাউজে সিটি মেয়রের কাছে নমনীয়তা হয়ে আবার একত্রিত হওয়ার চেষ্টা চালান। কিন্তু ব্যর্থ হলেও বরিশাল রাজনীতির প্রেক্ষাপটে প্রতিমন্ত্রীর কাছে জাকিরের বিষয়টি প্যাস্টিজ ইস্যু হয়ে দাঁড়ায়। ফলশ্রুতিতে দীর্ঘদিন ধরে বিতর্কিত এই সাংবাদিক নেতা প্রতিমন্ত্রীকে দফায় দফায় ফোন দিলেও অপরপ্রান্ত থেকে সাড়া না পেয়ে ঢাকার বাসায় গিয়ে সাক্ষাত করে সিটি মেয়রের সাথে আপসরফার বিষয়টির জন্য দুইজন শীর্ষ বা প্রবীণ সাংবাদিককে দায়ী করেন। তাদের চাপাচাপিতে তিনি নমনীয় হতে বাধ্য হয়েছেন, এমনটি ব্যাখ্যা দেন। এবং মার্জনা কামনা করে আগামীতে এ ধরনের ভুল হবে না বলে প্রতিশ্রুতি রাখেন।

সূত্র জানায়, জাকিরের এই ব্যাখ্যায় প্রতিমন্ত্রী সন্তুষ্টু হতে পারেননি। বরং তার মোনাফিকি মনভাব প্রকাশ পেয়ে যায়। কারণ যে দুই সাংবাদিককে তিনি দোষারোপ করেছেন, এদের মধ্যে মানবেন্দ্র ব্যাট বল প্রেসক্লাব রাজনীতিতে জাকিরের অন্যতম অস্থাভাজন সহচর হিসেবে পরিচিত। প্রতিমন্ত্রী সেই থেকে যথাসম্ভব জাকিরকে এড়িয়ে চলতে শুরু করেন।

সূত্রমতে, প্রতিমন্ত্রী কোন এক নেতার মাধ্যমে জাকিরকে তার কাছাকাছি উপস্থিত হতে নিষেধ করার আদেশটি জানিয়েও দেন। তদুপরি নাছড়বান্দা দুর্যোগ-দুর্বিপাক দেখা দিলেই প্রতিমন্ত্রীর দপ্তরে ছুটে যান এবং নানান ছলছুতায় তার সাথে সাক্ষাতের চেষ্টা করেন।

অপর একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, বর্তমানে প্রতিমন্ত্রী বরিশাল মিডিয়ার নোংরা রাজনীতি সৃষ্টিতে জাকিরের ভুমিকা কমবেশি অবগত হয়ে বেজায় নাখোশ। মাঝে বেশকিছু দিন জাকির প্রতিমন্ত্রীর ঢাকা টু বরিশালে দুয়ারে যাতায়াত বন্ধ রেখেছিলেন। এই সময়কালে প্রতিমন্ত্রীকে নিয়ে জাকির বিভিন্ন ব্যক্তির সামনে আপত্তিকর মন্তব্য করেন এবং নিজের অর্থের বলে তিনি বলিয়ান এমন দাবি করে প্রতিমন্ত্রীর কাছে তার না গেলেও চলে বলে দদ্ভোক্তির সুরে কথা বলেন।

এ খবর প্রতিমন্ত্রীর কানে তার দলীয় অনুসারীরা তুলে দেওয়ায় তিনি এই বিতর্কিত সাংবাদিক নেতার বিষয়ে আরও বেশি সতর্ক হয়ে ওঠেন। তাছাড়া একাধিক মামলার আসামি এবং সার্বক্ষণিক ঝুট-ঝামেলার জন্ম দিয়ে বিতর্ক সৃষ্টিকারী জাকির প্রতিমন্ত্রীর পাশে থাকায় স্থানীয় মিডিয়াকর্মীসহ মালিকপক্ষের একটি বৃহৎ অংশ বিষয়টি ভাল চোখে দেখছেন না। এমনকি প্রতিমন্ত্রীকে কোন মাধ্যম জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, জাকিরকে সাক্ষাত এবং সহায়তা দিলে তারা নীতিগত কারণে দুরত্ব বজায় রাখতে বাধ্য হবেন। ইতিমধ্যে এর প্রতিফলনও দেখা গেছে। প্রতিমন্ত্রীর বরিশালে আসা এবং বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিলে, সেক্ষেত্রে জাকিরের উপস্থিতি থাকলে সেদিনের অনুষ্ঠানমালার ছবি প্রকাশ থেকে অনেক পত্রিকা বিরত থাকছে।

সম্প্রতি সেই জাকির প্রতিমন্ত্রী বরিশালে আসলেই সাক্ষাত লাভে ফের মরিয়া হয়ে ওঠেছেন। দেখা গেছে, প্রতিমন্ত্রী বরিশালে আসলেই একটু রাতের গভীরতায় তার নিজস্ব প্রাইভেটকারে প্রবীণ সাংবাদিক মানবেন্দ্র ব্যাট বলকে সঙ্গী করে পানি উন্নয়ন বোডের ডাকবাংলোয় উপস্থিত হন। কিন্তু আগের মত সমাদর না পাওয়ায় মানবেন্দ্র ব্যাট বলকে দিয়ে বিভিন্ন সুপারিশ বা সমস্যার সমাধান টানতে প্রতিমন্ত্রীর সাথে যখন আলাপচারিতা চলে, ঠিক তখন জাকিরকে ডাকবাংলোর বাইরে অসহায়ের ন্যায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

এমতাবস্থায় ইদানিং শুধু প্রতিমন্ত্রী নন, তার এপিএস শফিকুল ইসলাম পিন্টুও জাকিরকে এড়িয়ে চলছেন, পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মীরা তার সাথে আলাপচারিতা বন্ধ করে দেওয়ায় ডাকবাংলোয় বাইরে সঙ্গীহীন অবস্থায় তিনি একাকী থাকছেন।

অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, জাহিদ ফারুক শামীম আজ বৃহস্পতিবার বরিশাল সফরে এসেছেন। এ খবরে জাকির তার সাথে সাক্ষাত লাভে প্রস্তুতি নিয়েছেন। এজেন্ডা হচ্ছে, বরিশালের তরুণ সাংবাদিকদের সাথে সংঘাতে বিভাজন এবং একজন সাংবাদিককে হত্যাচেষ্টায় তার সংশ্লিষ্টতা প্রকাশ পাওয়ায় আইনী ঝামেলা থেকে নিজেকে রক্ষায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে প্রতিমন্ত্রীকে দিয়ে সুপারিশ করিয়ে একটি অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে চায়। এ রিপোর্ট দেখা পর্যন্ত রাত ৯টার সর্বশেষ প্রাপ্ত খবরে জানা গেছে, জাকির এখনও প্রতিমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাতের বিশেষ একটি পত্রিকা অফিসে অপেক্ষমান রয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, এবার ওই পত্রিকার সম্পাদক-মালিককে তিনি সঙ্গী করতে পারেন। উল্লেখ্য নতুন এই সঙ্গী বরিশাল মিডিয়ার ‘ভগবানরুপী’ মোড়ল সামাজিক ও প্রশাসনিক মহলে  চিহ্নত।’

মুজিববর্ষ