চরফ্যাসনে ইমামকে মারধরের অভিযোগে ফিরোজ হাজী আটক অসহায় নারীকে নির্যাতনের অভিযোগে ঝালকাঠির চপলেরের বিরুদ্ধে মামলা ! বরিশালে নগরীতে আ’লীগ নেতার ভবনে চাকুরীর প্রলোভনে জিম্মি করে দেহব্যবসা ! ডিবির অভিযানে আটক-৩, ২ নারী উদ্ধার প্রধানমন্ত্রীর দেয়া সাংবাদিকদের জন্য প্রনোদনা বরিশালে সুষম বন্টন হওয়া উচিত ছিলো বরিশাল পলাশপুরে পিতা ধর্ষণ করলো মেয়েকে ! মঠবাড়িয়ায় স্বামী স্ত্রী ও সন্তানের রহস্যজনক মৃত্যু, লাশ উদ্ধার পবিত্র ঈদ-উল আযাহা উপলক্ষে ১০নং ওয়ার্ডবাসীকে শুভেচ্ছা জানালেন কাউন্সিলর এটিএম শহিদুল্লাহ কবির ঈদের আনন্দ করতে গিয়ে যেন করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি না পায় এজন্য সবাইকে সর্তক থাকতে হবে, বিএমপি কমিশনার প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ দুলারহাট বন্ধু ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে হত দরিদ্র, সুবিধা বঞ্চিত নারী ও শিশুদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ

বরিশালে আ-লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে সোহরাবের ভাটারখাল দখল করে দোকান নির্মাণ,অর্থ বানিজ্য!

(পর্ব১)

মোঃ রাকিব হাওলাদার:: বরিশাল নগরীজুড়ে ভূমিদস্যুর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে । ভূমিদস্যুদের চোখ যেন সরছে না বরিশাল নগরীর প্রাণকেন্দ্র গুলো থেকে।

কবি জীবনানন্দ দাসের একটি কবিতায় তিনি বলে ছিলেন যে, ধান, খাল, নদী এই তিন নিয়ে বরিশাল। তবে এই খালই রয়েছে ভূমিদস্যুদের হুকমির মূখে।

নদী, খাল যদি হুমকির মূখে পরে তাহলে বরিশালের ঐতিহ্য নষ্ট হবে বলে মনে করেন সুশিল সমাজ।

বরিশাল নগরীর ১০ নং ওয়ার্ডের ভাটার খাল সংলগ্ন খাল কে দখল করে শিশুপার্ক ম্যানেজার সোহরাবের চাঁদাবাজি করা অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, নগরীর ১০নং ওয়ার্ডে ভাটারখালটি দিন দিন দখল করছেন স্থানীয় ভূমিদস্যুরা। রাজনৈতিক ব্যানারে দাড়িয়ে বিসিসি মেয়র সাদিক আবদুল্লাহর লোক পরিচয় দিয়ে এমন দখল মিশনে নেমেছেন  বরিশাল প্লার্নেট শিশু পার্কের ম্যানেজার সোহরাব হোসেনসহ স্থানীয় আ-লীগের নেতাকর্মীরা।

সরেজমিনে দেখাযায়, আনন্দ রেন্ট-এ কার নামে একটি সাইনবোর্ড দিয়ে গাড়ির গ্যারেজ বানিয়েছেন আনন্দ রেন্ট-এ কারের মালিক কালাম হোসেন।

অন্যদিকে ভাটার খালের ভিতরেও কিছু স্থানীয় লোকজনরা পাকা দোকান নির্মান করে চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের নিজস্ব ব্যবসা। দোকানের ভাড়া তুলছেন স্থানীয় কিছু আ-লীগের প্রভাবশালী ব্যক্তিবর্গরা।

যেখানে বাংলাদেশের প্রচলিত আইন অনুসারে একটি পুকুর ভড়াট করাই অপরাধ হিসেবে গণনা করা হয়। সেখানে কিভাবে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে সরাসরি খাল দখল করছেন ভূমিদস্যুরা? এমনটি প্রশ্ন সাধারণ মানুষদের মাঝে।

বরিশালের সাবেক ডিসি গাজী সাইফুজ্জামান দখলকৃত খাল উদ্ধারে ২২টি খাল মুক্ত করতে ২০১৬ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সর্বকালের স্মতঃস্ফুর্ততার উদাহরন সৃষ্টি করে হাজার হাজার মানুষের স্বেচ্ছাশ্রমে ঐতিহ্যবাহি জেল খালটিসহ বেশ কিছু খালে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো হয়। অভিযান কর্মসূচীতে অংশ নেন তৎকালীন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি, বরিশাল সদর আসনের তৎকালীন সংসদ সদস্য জেবুন্নেছা আফরোজ, বরিশাল-৩ আসনের তৎকালীন সংসদ সদস্য এ্যাড. শেখ মো: টিপু সুলতান, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আব্দুল মালেক, তৎকালীন সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামাল, সাবেক বরিশাল জেলা প্রশাসক ড. গাজী মো: সাইফুজ্জামান, বরিশালের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবুল কালাম আজাদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) কাজী হোসনেয়ারা। এর সাথে হাজার হাজার নারী-পুরুষ, মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক, তরুন-তরুনী ও স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রী, স্কাউট, বিএনসিসি, সাংস্কৃতিক সংগঠন  ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন।

এদিকে মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের কোষাধ্যক্ষ কালাম হোসেন বরিশাল নিউজ24কে বলেন, আমি এ দোকানের মালিক কিন্তু জমির মালিক সোহরাব হোসেন। খালের পাশে সবাই ময়লা ফালায় তাই আমি এখানে পাকাঁ দোকান নির্মাণ করে গাড়ির গ্যারেজ দিয়েছি।আমি প্রতিমাসে সোহরাব ভাইকে গ্যারেজসহ ঘর বাবদ ১০হাজার টাকা ভাড়া দেই।

তবে ভাটারখালটি সহ বরিশালের ২২টি খালের সীমানা নির্দিষ্টকরণ চিহ্ন ও পিলার স্থাপনও করেন জেলা প্রশাসক।  তবে সেই পিলার ও খালের সীমানা নির্দিষ্টকরণ চিহ্ন উঠিয়ে পুনরায় আবার দখল করে দোকান ঘর নির্মাণ করেছেন সোহরাব হোসেনসহ স্থানীয় আ-লীগের নেতাকর্মীরা।

এদিকে অভিযুক্ত সোহরাব হোসেন মুঠোফোনে বরিশাল নিউজ24কে জানান,
আমার লিজ নেয়া জেলা পরিষদের জমি পযর্ন্ত ওই গ্যারেজটি করা হয়েছে। তা ছাড়া গত বছরে খাল খননের জন্য নির্ধারিত পিলার দিয়েছিলেন সাবেক জেলা প্রশাসক গাজী সাইফুজ্জামান।
তবে খালের জমি সবাই পুনরায় দখল করেছে। আমিও তাই গ্যারেজ করেছি।
মেয়রের নাম ও দলের নাম ভাঙ্গিয়ে খাল দখলের বিষয়টি তিনি অস্বিকার করে।

এবিষয় বিসিসি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে,তার ব্যস্ততার কারণে বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয় নি।

অপরদিকে সাধারণ মানুষের দাবি বিসিসি মেয়র ও বরিশাল জেলা প্রশাসক দৃষ্টি দিলে দখলবাজদের কাছ থেকে খালটি  দখল মুক্ত হয়ে পুনরায় জীবন ফিরে পাবে।

চলবে……..

মুজিববর্ষ