১০নং ওয়ার্ড আ-লীগের উদ্যােগে নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জম্মদিন পালিত হুমকি বাস্তবে রুপ, শেষ পর্যন্ত রিয়াজের বাড়ি দখলে নিলো স্বীকৃত হত্যাকারী লিজা! বরিশালে ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে এখনই মাঠ গরম করছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা বরিশাল কর্নকাঠিতে ভেকু মেশিনে নদী খাচ্ছে লোকমানের এম.এস.বি ব্রিকস! ভিডিও সহ বরিশালে পলাশপুরের শুক্কুর ও চাঁদপুরার লিপি জনতার হাতে আপত্তিকর অবস্থায় আটক! অতঃপর বরিশালে ১২কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী ডিবি পুলিশের খাঁচায়! বরিশালে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্কুল ছাত্রের ঘুষিতে মৃত্যু গাড়ি চালকের বাকেরগঞ্জের ভরপাশায় অজ্ঞাত শিশুর মরদেহ উদ্ধার বরিশালে সেই রানা আবারো বেপরোয়া! বরিশালের চরামদ্দী ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচনে সিগন্যাল পেয়েছেন নতুন মুখ মঈন!

বরিশালে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর বাংলোয় বহিস্কৃত নেতা! নেতাকর্মীদের ক্ষোভ

আসাদুজ্জামান ॥ নানান অপকর্মের দায়ে বরিশাল মহানগর আওয়ামীলীগ থেকে সর্বসম্মতিক্রমে বহিস্কৃত ও বরিশাল মিডিয়ায় তর্কিত বিতর্কিত বহু অঘটনের জনক অবৈধ ব্যবসায়ী এস এম জাকির প্রায় ১ বছর যাবত পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল অবঃ জাহিদ ফারুক শামীমের সান্নিধ্য থেকে দহরম মহরম করায় বরিশাল আওয়ামীলীগ ও নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। শুধু আওয়ামীলীগেই নয় বরিশাল মিডিয়া পারায় চরম দ্বিধা বিভক্তি দেখা দিয়েছে। প্রতিমন্ত্রীর উন্নয়ন মুলক কাজগুলো যারা ইতোপুর্বে প্রিন্ট ইলেকট্রনিক্স ও অনলাইন মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচার করতেন, তারাও ক্ষুদ্ধ হয়ে বিতর্কিত এস এম জাকিরের কারনে অনেকেই এখন মিডিয়া কাভারেজ দিতে অনিহা প্রকাশ করছেন। আওয়ামীলীগ থেকে বহিস্কার হওয়ার পরেও অদৃশ্য ক্ষমতায় বরিশাল প্রশাসনে অলৌকিক ক্ষমতা খাটিয়ে আওয়ামী ঘরানার নেতাকর্মী ও সমর্থকদের বিরুদ্ধে হামলা মামলা দিয়ে একচেটিয়া প্রভাব বিস্তার করায় সব মহলে ক্ষোভের জন্ম নেয়। সবাই মনে করছেন প্রতিমন্ত্রীর বাম পাশে ডান পাশে থাকা এস এম জাকির দল থেকে বহিস্কৃত হলেও ক্ষমতার কমতি নেই। প্রতিমন্ত্রীর সাথে প্রোগ্রামের ছবিতে ফটোশেষন নিয়ে তা নিজ ঘরানার ২/১ টি গণমাধ্যমে প্রচার করে নিজেকে প্রভাবশালী হিসেবে জাহির করে আসছেন । প্রতিপক্ষ ও প্রশাসনকে বোঝাতে চেয়েছেন তিনি প্রতিমন্ত্রীর একান্ত আস্থাভাজন ব্যক্তি। ফলে জাকিরের পাশাপাশি পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল জাহিদ ফারুক শামীমের প্রতি বিভিন্ন শ্রেনী ও পেশার মানুষসহ আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে। বিষয়টি কয়েকমাস আগে প্রতিমন্ত্রীর কানে পৌছলে প্রাথমিকভাবে জাকিরকে আগেরমত প্রাধান্য না দিয়ে এড়িয়ে চলতে দেখা গেছে। সামাজিক প্রোগ্রামগুলোতে প্রতিমন্ত্রীর পাশে এস এম জাকিরের উপস্থিতি বেশ কিছু দিন ধরে দেখা যায়নি। এ ঘটনা চারিদিকে ছড়িয়ে পরলে এস এম জাকির নতুন করে প্রতিমন্ত্রীর সান্নিধ্যে যাওয়ার কৌশল অবলম্বন করেন। নয়া কৌশলে সাংবাদিক নেতা মানবেন্দ্র বটব্যালকে সাথে নিয়ে নিজের অস্তিস্ত¡ জানান দিতে প্রতিমন্ত্রীর বাংলোয় ঘন ঘন যাতায়াত শুরু করেন। এতে প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে থাকা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ সমমনা ব্যক্তিবর্গ একাধিকবার ক্ষোভ প্রকাশ করেন। জানা গেছে, প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল জাহিদ ফারুক শামীম পরিস্থতি পর্যালোচনা করে বহিস্কৃত আওয়ামীলীগ নেতা বরিশাল মিডিয়ায় বিতর্কিত এস এম জাকিরকে তার বাংলোয় যেতে নিষেধ করেছেন। তার পরেও নানান কৌশলে বাংলোর বাইরে গিয়ে দাড়িয়ে থেকে মানুষকে বোঝাতে চাইছেন তিনি মন্ত্রীর খুব ঘনিষ্ঠ লোক। এভাবে বরিশাল প্রশাসনে প্রভাব বিস্তার করে জাকির তার বিরোধী মতের লোক জনদেরকে নানানভাবে হয়রানি করে আসছে। এমনকি এস এম জাকিরের অপরাধ অপকর্মের বিরুদ্ধে সংক্ষুদ্ধ বা আহত ব্যক্তি বরিশালে থানাগুলোতে এস এম জাকিরের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হলেও তা আমলে নিতে ব্যাপক গড়িমসি দেখা গেছে। এ পর্যন্ত এস এম জাকিরের বিরুদ্ধে একাধিক থানায় এজাহার দেয়া হলেও তা মামলা হিসেবে এখন পর্যন্ত রেকর্ড হওয়ার নজির নেই। অথচ একই অপরাধে জাকিরের মতবিরোধী কারো বিরুদ্ধে এজাহার দেয়া হলে তা নিমিষেই রুজু হয়ে যায়। ফলে আওয়ামী বিরোধীদের শক্তি অনেক মহলে মহাশক্তিতে রূপান্তরিত হয়েছে। অনেকেই ধারনা করছেন আওয়ামীলীগ থেকে বহিস্কৃত হয়ে আওয়ীমীগ ও বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষকে এক চেটিয়া হয়রানী করে এবং হামলা মামলা দিয়ে নিরীহ মানুষকে নিস্পেসিত করার ক্ষমতার উৎস মনে হয় পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল জাহিদ ফারুক শামীম। বরিশাল সদর আসনে সর্বাধিক ভোট পেয়ে নির্বাচিত সংসদ সদস্য কর্নেল অবঃ জাহিদ ফারুক শামীম জনসেবায় প্রশংসিত হলেও বিতর্কিত ব্যক্তিদের কারনে জনমনে নানান সমালোচনা জন্ম দিয়েছে। প্রতিমন্ত্রীর সন্নিকটে ঘাপটি মেরে থাকা এক সময়ের ছাত্রদল নেতা হাদিস মীর যেভাবে মন্ত্রীকে কলংকিত করে নিজ আখের গোছাতে সচেষ্ট থেকে আওয়ামীলীগের প্রতিমন্ত্রীকে কলংকের ছাপ দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন তেমনি এস এম জাকিরও নিজ আখের গোছাতে বার বার পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর সন্নিকটে গিয়ে নতুন সমালোচনার বীজ বপন করেছেন। এই সকল বিতর্কিতদের এখনি এড়িয়ে না চললে আগামী নির্বাচনে ভোটের মাশুল গুনতে হতে পারে এ অঞ্চলের আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের।

মুজিববর্ষ