বরিশালে পলাশপুরে রাতের আধাঁরে গৃহবধূর বসতঘরে আগুন! এই বৃষ্টি দিন ! প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক মোঃ শামীম বিশ্বাস বরিশাল জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজমূল হুদার আবেগঘন ঈদ শুভেচ্ছা বার্তা পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে এগিয়ে যাচ্ছেন আ-নেতা তৌহিদুল ইসলাম বাকেরগঞ্জে অসহায় মানুষের পাশে মোঃ শামীম বিশ্বাস বরিশালে সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় ক্রেতা -বিক্রেতাকে জরিমানা পশ্চিম গগনে বাঁকা চাঁদ দেখলেই পবিত্র ঈদুল ফিতরের ঈদ অসহায় কর্মহীনদের পাশে দাড়িয়ে নজর কেড়েছে ছাত্রলীগ নেতা রাসেল

বরিশাল নগরীতে প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে স্থানীয়দের উপর হামলা, ভাংচুর

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশাল নগরীর পুরানপাড়া এলাকায় গভীর রাতে উলঙ্গ অবস্থায় এক মানসিক প্রতিবন্ধী মেয়েকে গণধর্ষনের হাত থেকে রক্ষা করেছে এলাকাবাসী। শনিবার রাত ২ টার দিকে নগরীর ৩ নং ওয়ার্ডের পুরানপাড়া ফকির বাড়ির পিছনে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী। এঘটনাকে কেন্দ্র করে রবিবার রাতে হামলার শিকার হয়েছেন স্থানীয় ৭ জন হয়েছে। এবং তাদের বাড়ি-ঘড় ভাংচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন হামলার শিকার বুলবুলের ছোট ভাই মুন্না। এতে বুলবুল, রেজাসহ ৭ জন আহত হন।

অভিযোগে জানা গেছে, গত শনিবার রাত ২ টার দিকে পুরান পাড়া এলাকার ফকির বাড়ির পিছনের ঝোপে সন্দেহজনক ভাবে পদচারণার শব্দ পেয়ে স্থানীয় কতিপয় বাসিন্দারা টর্চ লাইট নিয়ে বের হলে বিবস্ত্র অবস্থায় এক নারীর সাথে থাকা ঐ এলাকার নজুমদ্দী ফকিরের ছেলে সোহরাব হোসেন ওরফে ঠ্যাক সোরাব (৪৫) ও আরো দুজনকে নিয়ে মেয়েটার সাথে ধস্তাধস্তি করে। ঠ্যাক সোহরাবের সাথে থাকা দুইজন হল সাপানিয়ার জামাল (৩৮) এবং মহসিন (৩২)। টর্চের আলো এবং তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে সোহরাব এবং তার সাথে থাকা দুই সহচর দৌঁড়ে পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ করা হয়। পরবর্তীতে বিবস্ত্র অবস্থায় থাকা মেয়েটিকে কাপড় পড়ানো হলে জানতে পারে মেয়েটি মানসিক ভারসাম্যহীন বুদ্ধি প্রতিবন্ধী।

তাৎক্ষণিক ভাবে প্রতক্ষ্যদর্শীরা মেয়েটিকে হেফাজতে নিয়ে ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে জানাতে ফোন করা হলে গভীর রাত হওয়ায় কল রিসিভ না করাতে সোহরাবের বাড়িতে ঘটনা জানায়, সে সময় সোহরাব পলাতক থাকায় তাকে পায়নি উপস্থিত এলাকাবাসী। পরে প্রতক্ষ্যদর্শীদের ম্যানেজ করতে ঠ্যাক সোহরাব এবং তার ঐ দুই সহচর জামাল ও মহসিন বিভিন্ন ভাবে লবিং তদ্বির করে পরিশেষে নানান ভাবে হুমকি ধামকিও দেয় ঘটনা পাঁচ কান যাতে না করা হয়৷ এদিকে রাত দুটোর এহেন মানসিক ভারসাম্যহীন প্রতিবন্ধী মেয়েকে গণধর্ষনের চেষ্টা করায় ধরা খেয়ে পালিয়ে যাবার বিষয়টি এলাকায় টক অফ দ্যা মহল্লায় পরিনত হওয়ায় অভিযুক্তরা ঘটনার বিষয় অস্বীকার করে গুজব বলে আসল ঘটনার মোড় ঘোরাতে বিভিন্ন ক্ষমতাসীনদের ব্যবহার করছে বলেও অভিযোগ করে জানায় এলাকাবাসী। এসময় স্থানীয়দের মধ্যে উপস্থিত থাকা ৭ জনের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে রবিবার রাতে হামলা চালায় সোহবার বাহিনী। এমকি তাদের বাড়ি-ঘড় ভাংচুর করা হয়।

নাম না প্রকাশের শর্তে প্রতক্ষ এক স্থানীয় বাসিন্দা জানায়, সোহরাব তার দুই সহচর জামাল ও মহসিনের দ্বারা প্রশাসনের সোর্স ঠ্যাক সোহরাব হিসেবেই পরিচিত হয়ে গেছে এলাকায়। জানামতে তারা বিভিন্ন মামলার আসামি। এছাড়াও তারা দলে না ভাঙ্গিয়ে নানা অপকর্ম করে আসছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সোহরাবের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এবিষয়ে বিসিসি’র ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিল হাবিবুর রহমান ফারুক জানায়, আমিও বিষয়টি না শুনেছি।

এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে। সোহরাবের হাত থেকে বাঁচতে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন হামলার শিকার ব্যক্তি।

মুজিববর্ষ