বরিশালে পলাশপুরে রাতের আধাঁরে গৃহবধূর বসতঘরে আগুন! এই বৃষ্টি দিন ! প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক মোঃ শামীম বিশ্বাস বরিশাল জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজমূল হুদার আবেগঘন ঈদ শুভেচ্ছা বার্তা পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে এগিয়ে যাচ্ছেন আ-নেতা তৌহিদুল ইসলাম বাকেরগঞ্জে অসহায় মানুষের পাশে মোঃ শামীম বিশ্বাস বরিশালে সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় ক্রেতা -বিক্রেতাকে জরিমানা পশ্চিম গগনে বাঁকা চাঁদ দেখলেই পবিত্র ঈদুল ফিতরের ঈদ অসহায় কর্মহীনদের পাশে দাড়িয়ে নজর কেড়েছে ছাত্রলীগ নেতা রাসেল

মারা গেলে দেশ ও মিডিয়ার কাছে একটি সংখ্যা মাত্র ! পরিবারের কাছে আপনি পুরো একটা পৃথিবী

জুবায়ের ইসলামঃ মহামারী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলে দেশের মিডিয়া প্রচার করবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে।সরকারি হিসেবে নতুন করে একটি মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে এবং নামটা তালিকা ভুক্ত হবে।

কিন্তু একটি বার ভেবে দেখেছেন আপনি আপনার পরিবারের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ ।করোনার সাথে লুকোচুরি খেলতে গিয়ে নিজের জীবন বিলীন করে দিলে দেশের কিন্তু কোন ক্ষতি হবে না, আবার কোন কিছু থেমেও থাকবে না বরং আপনার পরিবার হারাবে একজন সদস্য ও একটা অমূল্য সম্পদ।

করোনা ভাইরাস আসলে কি বাংঙ্গালীরা এখন পর্যুন্ত এর তান্ডব সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণাই নিতে পারি নাই ।দেশের জনগণ বাঁচাতে সরকার দেশ লগডাউন ঘোষণা করেছে সেই জনগণ লগডাউনের সাথে করছে লুকোচুরি ।পুলিশ দেখলেই মুখে মাস্ক দিয়ে কথা একটাই বাজারে যাই ঔষধ কিনতে হবে।

একবারের জন্য কি মনে হয় না, কাকে ফাঁকি দিচ্ছেন নিজেকে, দেশকে, নাকি করোনাকে।তবে আক্রান্ত হওয়া অনেক মানুষ বুঝতে পেরেছেন কতটা বড় এর ভয়াবহতা। বুঝতে পেরেছেন যে অসুস্থ হলে তাকে কেউ দেখতে আসবে না আর মৃত্যু বরণ করলে সবাই মিলে দিতে পারবে না শেষ বিদায় ও মাটি।

সরকারি বেসরকারি ভাবে এতো প্রচার প্রচারণা করা হচ্ছে তারপরেও মানুষ সচেতন হচ্ছে না ।এখনো অনেক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকা শহর থেকে গ্রামে যাচ্ছে।গ্রামে গিয়ে ভাইরাসটাকে সকলের মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছে ।

সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে অল্প পরিসরে কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও মার্কেট খোলা রাখতে অনুমতি দেয়া হয়েছে । কিন্তু শপিংমল ও দোকানের অবস্থা দেখলে মনে হয় কিশের করোনা কোথায় করোনা ভাইরাস । জীবনের চেয়ে ঈদের জন্য নতুন কাপড় কেনা এদেশের কিছু মানুষের কাছে বেশি জরুরি । দেশের কিছু অসচেতন মানুষ কবে সচেতন হতে পারবো কে জানে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করতে ১৬ই মে থেকে দেশ আবারও লগডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করছে দেশের সকল প্রশাসন।সাধারণ ছুটি বৃদ্ধি করে করা হয়েছে ৩০শে মে পর্যন্ত। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে প্রতিদিন করা হচ্ছে মোবাইল কোর্ট অভিযান ।প্রচার প্রচারণার পাশাপাশি শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে ও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করা হয় দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় ।

জনসাধারণকে অপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে যেতে নিষেধ করেছে জেলা প্রশাসনসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। প্রয়োজনে কেউ বের হলেও যেন মুখে মাস্ক পড়ে বের হয় সেজন্য অনুরোধ করা হয়েছে।এমনকি এ আদেশ অমান্যাকরীর বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

জনসাধারনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রাস্তায় রয়েছে পুলিশ আর হাসপাতালে চিকিৎসক ও নার্স । সেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছে অনেক চিকিৎসক ও পুলিশ সদস্য ।তবে যতকিছুই করা হোক না কেন জনগণ আইন না মানলে কোন কিছুই কাজে আসবে না।

এতসব আয়োজন করে আদৌ কি কোন লাভ হবে । দেশ লগডাউন করা হবে কিন্তু মানা হবে না, তাহলে লাভ কি । মানুষ বিভিন্ন অজুহাতে বের হবে রাস্তায়, মানবে না সামাজিক দূরত্ব ।

এতো দিনের অজুহাতের ফলাফল হলো দেশে এখন মানুষের মৃত্যুর মিছিল শুরুর অপেক্ষা মাত্র ।দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এখন প্রায় ২০হাজার ৬৫জন এবং মোট মৃত্যু ২৯৮জন মানুষ ।কাকে দোষ দিবেন সরকার, পুলিশ, নাকি নিজেকে ভেবে দেখুন।

একটু একটু করে অনেকটা সময় পেরিয়ে গেছে এখন প্রশ্ন উঠেছে লগডাউন মানা নিয়ে। দিন দিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যাটা যে বৃদ্ধি পাবে তাতে সন্দেহর কোন অবকাশ নেই । এখন ঠিক এখনই নিজেকে ও পরিবারকে বাঁচাতে কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

সচেতন মহলের দাবী করোনা থেকে দেশকে বাঁচাতে হলে কার্যকর ভাবে মানতে হবে লগডাউন। চলতে হবে সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে। যে কোন মূল্যে অপ্রয়োজনে বাহিরে আসা বন্ধ করতে হবে।তা না হলে আগামী দিনে বাংলাদেশের জন্য মহা বিপদ অপেক্ষা করছে ।

তাই সবাই সরকারি নির্দেশ মেনে চলি । সচেতন থেকে সুস্থ থাকি, সুস্থ রাখি, জীবন বাঁচাই।

জুবায়ের ইসলাম চৌধুরী
প্রধান বার্তা সম্পাদক
বরিশাল নিউজ২৪.কম

মুজিববর্ষ