ঢাকায় থেকেও বরিশালে আসামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী জনপ্রতি ১২ কেজি পেঁয়াজ না নিলে দিচ্ছেন না তেল, চিনি ও ডাল! মুলাদীতে সার্চ,সৌল,সয়েল নামে শিল্পকর্মের উদ্যোগে ৪ দিন ব্যাপী ১০ জন তরুন কোন ঘোষনা ছাড়াই বরিশাল নগরীতে বাস চলাচল বন্ধ রাখলো পরিবহন শ্রমিকরা বরিশালে কলেজ ছাত্রী রিপার লাশ উদ্ধার বরিশালে মসজিদের উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পটুয়াখালীর বাউফলে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবিতে অটোগাড়ি চালকদের থানায় অবস্থান ঝালকাঠিতে ৪১ টি বেইলি ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ! পোর্টরোড এলাকা থেকে ২৮৮ বোতল ফেন্সিডিলসহ মাদক বিক্রেতা আটক বরিশালে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণে ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্কুলছাত্রী

sarjan faraby

মাসুদ চাকলা’র কবিতা, দহন

 

চোখের দেখা নহে গো বন্ধু
মনের দেখা হতে হয়,
ভালোবেসে আঘাত দিলে
হৃদয়ে যে হয় ক্ষয়।

মরমরে পাতা পেষন কালে
দুমরে মুচরে যায়,
কে বা তার রাখে খবর
কে বা তার পানে ফিরে চায়।

অতীত ভুলে স্বার্থের টানে
প্রিয়জন তার দুরে সরে যায়,
পথ পানে প্রিয়া তার দু নয়নে
স্বজন হারানোর ব্যাথায়, ফিরে ফিরে চায়।

অতীত দিনের হারানো ব্যাথা
নতুন করে আসে,
কুয়াশার চাদেরে মুরি দিয়ে তাই
রাতের আঁধারে, থাকে শিশির ভেজা ঘাসে।

হৃদয়ের দহন অনলে অনলে
অঙ্গ যে পুড়ে হলো ছাই,
ক্ষনিকের খেলাঘরে ক্ষনিকের লেনা দেনা
হিসাবের খাতা শুন্য,কিছু নাহি পাই।

পাহাড়ের কান্না শোনে নাতো কেউ
ঝর্ণা হয়ে যে ঝড়ে,
শুখনা পাতার সন্ধি কালে
অমনি ঝড়ে যে পরে।

বন্ধন তার ছিন্ন হলো
অজানা পথে দিলো পাড়ি,
কেউ তো তাকে বুকের আগলে না রাখিলো
দিলো তার সাথে আড়ি।

তবু ছায়া বিথী থাকে দাড়িয়ে
স্নেহ মাখা পরশে,
আবীরের রং ছাড়িয়ে ক্ষন
সব জ্বালা নেয়,মেনে ভালোবাসার আবেষে।

এ ভাবে দহন চলে নিশীক্ষন
হয়না তবু শেষ,
আসা আর যাওয়া তরুবিথী ছায়া
তুবও ভালোবাসা দেয় বেশ।

লেখক: কবি মাসুদ চাকলা

মুজিববর্ষ