1. gazia229@gmail.com : admin :
এসি মাসুদ রানার নেতৃত্বে ঢাকা ও টাঙ্গাইল থেকে বিকাশ প্রতারক চক্রের ৩ সদস্য গ্রেফতার - BarishalNews24
বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন

এসি মাসুদ রানার নেতৃত্বে ঢাকা ও টাঙ্গাইল থেকে বিকাশ প্রতারক চক্রের ৩ সদস্য গ্রেফতার

প্রতিবেদক:
  • প্রকাশকাল: বৃহস্পতিবার, ২৫ মার্চ, ২০২১
  • ৬৯ বার দেখা হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ জনগণের সেবায় সদাজাগ্রত বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ(বিএমপি)। বিএমপি কমিশনার মোঃ শাহাবুদ্দিন খান বিপিএম বার এর নির্দেশ ও সার্বিক তত্ত্বাবধানে কাজ করছে প্রতিটি ইউনিট ও থানা পুলিশ।

সেবার মান বৃদ্ধি করে ভুক্তভোগীর অভিযোগ শুনে যথাযথ আইনী সেবা প্রদান করতে সদা প্রস্তুত বিএমপি‘র প্রতিটি পুলিশ সদস্য। এরই ধারাবাহিকতায় নগরীর ৭ নং ওয়ার্ডের কহিনুর বেগম নামের এক সেবা প্রত্যাশীর অভিযোগ শুনে ঢাকা ও টাঙ্গাইল জেলা থেকে বিকাশ প্রতারক চক্রের ৩ সদস্য গ্রেফতার করেছে বিএমপি‘র কাউনিয়া থানা পুলিশ।

গত ২৩ মার্চ কাউনিয়া জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মোঃ মাসুদ রানার নেতৃত্বে উক্ত অভিযান পরিচালনা করা হয়। ঘটনা ১৬ ফেব্রুয়ারি বরিশাল নগরীর ০৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ ফিরোজ আলমের স্ত্রী কহিনুর বেগমের কাছে ০১৩১১৩৯৭০২১ নম্বর থেকে একটি ফোন কল আসে।

অপরপ্রান্ত থেকে অজ্ঞাত ব্যাক্তি কহিনুরকে জানায় তার বড় ভাই মোঃ সোবাহান মিয়া নারীসহ বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ থানা পুলিশের কাছে আটক হয়েছে। তিনি আরও বলেন পুলিশের নিকট থেকে ভাইকে ছাড়িয়ে নিতে হলে এক লক্ষ টাকা প্রদান করতে হবে।

কহিনুর বেগম তার পরিচয় জানতে চাইলে নিজেকে বাবুগঞ্জ থানার পুলিশের একজন সদস্য হিসেবে পরিচয় প্রদান করা হয়। কহিনুর বেগমের তিন ভাই ও সাত বোনের সবাই গ্রামের বাড়ী আগৈলঝাড়া উপজেলার পয়সারহাটে বসবাস করেন। সকল ভাই বোনের মধ্যে এতোটাই ভাল সম্পর্ক এক জনের বিপদে অন্যজন জীবন বাজি রেখে ঝাপিয়ে পড়েন।

ভাই পুলিশের কাছে আটক হয়েছে শুনে তাকে ছাড়িয়ে আনার জন্য অস্থির হয়ে পড়েন কহিনুর। তাই কোন কিছু বিচার বিশ্লেষণ না করে প্রতারকের দেয়া বিকাশ ০১৭৪১৮৮৩১৩৫ নম্বরে ৩০ হাজার, ০১৯১৫০২২৩২৯ নম্বরে ৩০ হাজার, ০১৩১৭২৪৮৮৪৯ নম্বরে ৩০হাজার এবং ০১৩১৭২৪৮৮৪৯ রকেট নম্বরে ১০ হাজার টাকা করে মোট ১ লক্ষ টাকা প্রদান করেন।

প্রতারকের পক্ষ থেকে কিছুক্ষন পর আরও টাকা চাওয়া হয় তখন কহিনুর বেগম তার ভাই সোবাহান মিয়ার কাছে ফোন করেন। ফোন রিসিভ করে সোবাহান মিয়া জানান তার বাবাসহ তিনি পয়সারহাট বাজারে আছেন। অবশেষে কহিনুর বেগম বুঝতে পারেন বাবুগঞ্জ থানা পুলিশের নামে ফোন করা ব্যাক্তি একজন প্রতারক এবং প্রদানকৃত ১ লক্ষ টাকা প্রতারনা করে নেয়া হয়েছে।

পরবর্তীতে কহিনুর বেগম প্রতারককে বিষয়টি জানিয়ে টাকা ফেরত চাইলে প্রতারক ফোন কেটে মোবাইল বন্ধ করে রাখে। ঘটনার সুরহা পেতে বিএমপি‘র কাউনিয়া থানায় গত ১৬ ফেব্রুয়ারি একটি সাধারন ডায়েরী (জিডি) করেন যাহার জিডি নং-৫৭৬, তারিখ ১৬-০২-২১ এবং পরবর্তীতে ২২ মার্চ অজ্ঞাত ব্যাক্তিদের আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

কহিনুরের দায়েরকৃত মামলা নং-০৮/৪৩ করার পর রহস্য উদঘাটন ও বিকাশ প্রতারক চক্র ধরতে বিএমপি কমিশনার মোঃ শাহাবুদ্দিন খান বিপিএম বার ও উপ-পুলিশ কমিশনার(উত্তর) মোঃ মনজুর রহমান পিপিএম বার এর নির্দেশে এসি কাউনিয়া মোঃ মাসুদ রানার নেতৃত্বে মাঠে নামে কাউনিয়া থানা পুলিশ।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৩মার্চ ঢাকা ও টাঙ্গাইল জেলা থেকে বিকাশ প্রতারক চক্রের ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। টাঙ্গাইল জেলার সখিপুর উপজেলায় অভিযান পরিচালনা করে রফিকুল ইসলামের ছেলে রোজন মিয়া(২৭) ও তমশের আলীর স্ত্রী জোবেদা আক্তার(৫৫)কে আটক করা হয়।

টাঙ্গইল থেকে আটককৃতদের তথ্য অনুসারে ঢাকা জেলার রাজাবাড়ী চৌরাস্তা থেকে তমশের আলীর ছেলে জে.আর এন্টারপ্রাইজের মালিক মোঃ জহিরুল ইসলাম(৩৭)কে আটক করা হয়।

ঢাকা মেট্রোপলিটন ও টাঙ্গাইল জেলা পুলিশের সহযোগিতায় আটককৃতদের নিকট থেকে ০১৬৮২৫৪৩৫৫৭- ০১৯১৫০২২৩২৯- ০১৩১৭২৪৮৮৪৯- ০১৭৪১৮৮৩১৩৫ বিকাশ ও রকেট নম্বর ব্যবহারিত ২টি মোবাইল উদ্ধার করা হয়।

আসামীদের গ্রেফতার করে একই দিন রাতে বরিশালে আসেন এসি মোঃ মাসুদ রানা। বিকাশ প্রতারক চক্র গ্রেফতার অভিযানে আরও উপস্থিত ছিলেন কাউনিয়া থানার এসআই মোঃ মেহেদী হাসান, এএসআই মোঃ ফয়সাল, কনস্টবল মোঃ রফিকুল ইসলাম ও মোঃ আবুল বাশার মিয়া। তবে বিকাশ প্রতারনা চক্রের সাথে আরও কেউ জরিত আছে বলে ধারনা করছে পুলিশ।

এ বিষয় প্রতারনার শিকার কহিনুর বেগম বলেন,, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ সর্বোদা জনসেবায় নিয়োজিত সেটা আবারও প্রমানিত হলো। আমার নিকট থেকে একটি প্রতারক চক্র ১লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। এ বিষয়ে আমি কাউনিয়া থানায় ১টি জিডি ও পরবর্তীতে মামলা দায়ের করি। এরপর প্রতারক চক্রটিকে ধরতে কাজ শুরু করে কাউনিয়া থানা পুলিশ। বিশেষ করে এসি জনাব মোঃ মাসুদ রানা মামলাটিকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে নিরলস ভাবে কাজ করেছেন।

ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে সার্বক্ষনিক আমার সাথে যোগাযোগ করেছেন এবং অবশেষে ঢাকা ও টাঙ্গাইল থেকে ৩জন প্রতারককে গ্রেফতার করেছে। আমি এসি মাসুদ রানা সহ সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। জনসেবায় তারা এভাবেই নিয়োজিত থাকবে এটাই প্রত্যাশা করি।

এ বিষয় এসি মোঃ মাসুদ রানা বলেন,, জনগনের কাক্ষিত সেবা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিএমপি কমিশনার জনাব মোঃ শাহাবুদ্দিন খান বিপিএম বার মহোদয় ও ডিসি (উত্তর) জনাব মোঃ মনজুর রহমানের নির্দেশে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। কাউনিয়া থানায় ভুক্তভোগীর দায়েরকৃত মামলাটির রহস্য উদঘাটন ও বিকাশ প্রতারক চক্রটিকে ধরতে আমরা থানা পুলিশ কাছ করেছি ।

তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে সুদূর ঢাকা ও টাঙ্গাইল থেকে ৩ জনকে গ্রেফতার করেছি। এই চক্রের সাথে আরও কেউ জড়িত আছে কিনা তদন্তে করে দেখা হবে । জনগনের সেবা নিশ্চিত করাই আমাদের কাজ।আসামী গ্রেফতার করে আমরা শুধু আমাদের উপর অর্পিত দ্বায়িত্ব ও কর্তব্য পালন করেছি। জনস্বার্থে আমাদের এ কার্যক্রম আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© 2021 - All rights Reserved - BarishalNews24
Design and Developed by Sarjan Faraby