1. gazia229@gmail.com : admin :
জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের রেকর্ড কিপার মজিবরের ঘুষের ভিডিও ফাঁস! দেখুন ভিডিও সহ - BarishalNews24
বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন

জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের রেকর্ড কিপার মজিবরের ঘুষের ভিডিও ফাঁস! দেখুন ভিডিও সহ

প্রতিবেদক:
  • প্রকাশকাল: সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১
  • ৯১ বার দেখা হয়েছে

জেলা রেকর্ড রুমের হালচাল:পর্ব:-২

এম. লোকমান হোসাঈন ॥ বরিশাল জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের মফেজখানা শাখার (রেকর্ড রুম) রেকর্ড কিপার মজিবর রহমানের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের পর এবার প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহণের একাধিক ভিডিও সহ চঞ্চল্যকর তথ্য আসে সময়ের বার্তা’র হাতে। ইতিপূর্বে ঘুষ গ্রহণের একটি ভিডিও ভাইরাল করা হয় সময়ের বার্তা’র স্যোসাল মিডিয়ায়।

এদিকে সময়ের বার্তায় সংবাদ প্রকাশের পর মফেজখানা শাখার (রেকর্ড রুমে প্রবেশ পথে গতকাল ছিল কড়াকরি আরোপ কর্তৃপক্ষ। মফেজখানা শাখার দায়িত্বরত কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার নিরুপম মজুমদার দিন-ভর তদারকি করেন নিজেই।

রেকর্ড রুমে ঢুকতে দেয়া হয়নি দালাল চক্রদের। সার্টিফিকেট মামলা, মৃত্যু সার্টিফিকেট, জমির ম্যাপ, পর্চা, খতিয়ান এর সই মোহরসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিতে ভুক্তভোগীরা ছুটে আসেন বরিশাল জেলা প্রশাসকের নিয়ন্ত্রনাধীন মফেজখানা শাখা (রেকর্ড রুমে)।

২২ টাকার কোর্ট ফি‘র মাধ্যমে খতিয়ানের সইমহরের কাগজপত্র দেয়ার বিধান থাকলেও ভূক্তভোগীদের কাছ থেকে, আদায় করা হচ্ছে কাগজপ্রতি ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত। অনুসন্ধানে দেখা যায়:- বরিশাল ভূমি রেকর্ট রুমে বিএস, আরএস, সিএস এবং এসএ খতিয়ানের সই মোহর উঠাতে হলে ২২ টাকার কোর্ট ফি’র স্থলে আদায় করা হচ্ছে ৪ শ থেকে ৩হাজার টাকা পর্যন্ত। বরিশাল জেলার সদর থানাসহ ৫ থানা যথাক্রমে উজিরপুর, গৌরনদী, অগৈলঝড়া, হিজলা ও বরিশাল সদরের দায়িত্বে আছেন মজিবর রহমান।

এই এলাকার কাগজপত্রের সই মোহর উঠাতে হলে মজিবরকে দিতে হচ্ছে আলাদা আলাদা কমিশন। অনুসন্ধান বলছে, সার্টিফিকেট মামলা ও মৃত্যু সার্টিফিকেটসহ বিভিন্ন কাগজপত্রর সার্চিং বাবদ ১ হাজার থেকে ১৫’শ, দাগের সূচিপত্র ৬০০, এসএ সিপি সই মোহর ১৫০০, এসএ ৩০০, আরএস ৫০০, সিএস ৮০০, মৌজা ম্যাপ ১ হজার থেকে ১৫’শ টাকা আদায় করছেন অফিসের কর্মচারীরা।

যার মধ্যে মজিবরকে দিতে হচ্ছে, এসএ সিপি খতিয়ান বাবদ ১০০, এস এ খতিয়ান ৫০, বিএস খতিয়ান ৫০ আর এস ৫০ সি এস ৫০০ টাকা ও মৌজা ম্যাপ বাবদ ৬’শ টাকা। প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহণের বিষয় জানতে চাইলে রেকর্ট কিপার মজিবর রহমান বলেন, চাকরী করতে হলে টাকা নিতে হবে। টাকা না নিলে ঊর্ধতন কর্মকর্তাদের সু-দৃষ্টি পাওয়া যায় না। আর চাকরীও করা যায় না। তাই বাধ্য হয়েই টাকা নিচ্ছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© 2021 - All rights Reserved - BarishalNews24
Design and Developed by Sarjan Faraby