1. gazia229@gmail.com : admin :
বিয়ের দাবি নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে, নির্যাতনে রক্তাক্ত তরুণী - BarishalNews24
রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন

বিয়ের দাবি নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে, নির্যাতনে রক্তাক্ত তরুণী

প্রতিবেদক:
  • প্রকাশকাল: মঙ্গলবার, ১৮ মে, ২০২১
  • ৮৯ বার দেখা হয়েছে

অনলাইন ডেস্ক:
দিনাজপুরের পার্বতীপুরে এক তরুণীকে (২০) ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখিয়ে প্রায় দেড় বছর ধরে শারীরিক সম্পর্ক চালিয়ে যাচ্ছিল ইমরান ইমন (২২) নামে এক যুবক। প্রতারিত হওয়ার শঙ্কায় আজ মঙ্গলবার বিকেল ৩টার দিকে দ্রুত বিয়ে করে ঘরে তোলার জন্য চাপ দিতে ইমনের বাড়িতে যান ওই তরুণী। কিন্তু ঘটল উল্টো ঘটনা।

বিয়ের প্রস্তাবে ক্ষুব্ধ হয়ে ইমন ও তার বাবা আবু তালেব (৫০) মিলে তাকে বেদম পেটান। মারপিট ও নির্যাতনে রক্তাক্ত ওই তরুণীকে পরে বাবা-ছেলে মিলে চ্যাংদোলা করে পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদের উত্তর গেটে ফেলে রেখে পালিয়ে যান। এসময় স্থানীয় পশ্চিম হুগলীপাড়া গ্রামের গৃহবধূ রেহানা বেগম তাকে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় রামপুর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শাফিকে খবর দেন। পরে তারা চিকিৎসার জন্য পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাসপতালে নিয়ে যান।

স্থানীয়রা জানান, পার্বতীপুর পৌর শহরের রোস্তমনগর মহল্লার বাসিন্দা ওই তরুণী পার্বতীপুর মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের একটি দোকানে বিক্রয়কর্মী হিসেবে চাকরি করছিলেন। বছরখানেক আগে উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের পূর্ব হুগলীপাড়া গ্রামের বেকার যুবক ইমনের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সেই থেকে তার প্রতিমাসের বেতনের টাকা তিনি পুরোটা গ্রহণ করতেন। বলত শিগগিরই তাকে ঘরে তুলবেন। আর এ দাবি জানাতে গিয়ে শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে ঠাঁই নিতে হলো তাকে।

হাসপাতলে চিকিৎসাধীন ওই তরুণী সাংবাদিকদের জানান, ইমন শুধু তার প্রতিমাসের বেতনের টাকাই নেননি, বিয়ের করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারীরিক সম্পর্কও গড়ে তোলেন। নির্যাতিতা তরুণী হতদরিদ্র দিনমজুর পরিবারের মেয়ে হওয়ায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নিতে সাহস পাচ্ছেন না বলে তার পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

অভিযোগ পেলে তদন্তসাপেক্ষে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে পার্বতীপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোখলেছুর রহমান জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© 2021 - All rights Reserved - BarishalNews24
Design and Developed by Sarjan Faraby