1. gazia229@gmail.com : admin :
লগডাউন নিয়ে বরিশালবাসীর ভবনা, জীবন আগে না জীবিকা? - BarishalNews24
শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০২:০৬ অপরাহ্ন

লগডাউন নিয়ে বরিশালবাসীর ভবনা, জীবন আগে না জীবিকা?

প্রতিবেদক:
  • প্রকাশকাল: সোমবার, ১২ এপ্রিল, ২০২১
  • ১১২ বার দেখা হয়েছে

জুবায়ের ইসলামঃ সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগাম ঘোষণা অনুযায়ী আগামীকাল ১৪ এপ্রিল রোজ বুধবার থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত কঠোর লগডাউনের চাদরে ঢেকে যাবে পুরো দেশ। মহামারী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

তবে সরকার ঘোষিত সেই লগডাউন নিয়ে জনসাধারণের মনে বিরাজ করছে হতাশা ঘেরা নানান প্রশ্ন। জীবন আগে নাকি  জীবিকা?আগে সেটা নিয়ে রয়েছে মতপার্থক্য। কেউ কেউ মনে করেন করোনার প্রকোপ থেকে দেশবাসীকে নিরাপদ রাখতে লগডাউন যথাযথ বাস্তবায়ন করতে হবে।

পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি ও মাস্ক পরিধান করা নিশ্চিত করতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। অসচেতন অনেক মানুষ এখনও মাস্ক পরতে অনিহা বোধ করে। আবার অনেক মানুষ জনসমাগম করে মহামারীর মধ্যেও বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান পালন করে যাচ্ছে।

যার ফলে নিজের ও পরিবারসহ দেশের মানুষকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের ঝুঁকিতে ফেলে দিচ্ছে। করোনার প্রকোপ থেকে দেশ নিরাপদ রাখতে হলে লগডাউন কার্যকর করে এগুলো বন্ধ করা দরকার। তাই দেশ লগডাউন করার বিষয় সরকার যে সিধান্ত নিয়েছে সেটা সঠিক ও সময়োপযোগী।

অন্য একটি পক্ষ মনে করেন কিছু কিছু অসচেতন মানুষের জন্য যেমন পুরো দেশ ঝুঁকিতে ফেলা যাবে আবার অযথা লগডাউন দিয়ে বেকার সমস্যা সৃষ্টি করা ঠিক হবে না। লগডাউনের কারণে অর্থনীতি দূর্বল হয়ে পড়ার পাশাপাশি দেশের মধ্যে অস্থির পরিবেশ তৈরি হতে পারে ।

লগডাউন নিয়ে বিত্তশালী ও সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের তেমন কোন মাথা ব্যাথা না থাকলেও খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের দুশ্চিন্তা সবচেয়ে বেশি। একদিন কাজে না গেলে যে সমস্ত মানুষের ঘরে খাবার জোটে না তাদের পরিবার নিয়ে একটু বেশি হতাশ হওয়াটাই স্বাভাবিক।

দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনগুলো কিভাবে পূরন করবেন সেটাই যেন কর্মঠো মানুষের কপালে চিন্তার ভাজ ফেলে দিয়েছে। লগডাউন নামক বাঁধা স্ত্রী সন্তানের জন্য দুবেলা আহার জোগাড় করার পথকে বন্ধ করে দিচ্ছে না তো।

যদিও দেশ লগডাউন নিয়ে সরকারি চাকরিজীবি ও বিত্তবান শ্রেণীর তেমন কোন প্রতিক্রিয়া দেখা যায় না। কারণ ধনীদের ব্যাংকে আছে কোটি কোটি টাকা আর সরকারি চাকুরীজীবিরা মাস গেলেই পাবে বেতন। সুতরাং লগডাউন নিয়ে তাদের চিন্তা না থাকাটাই স্বাভাবিক ।

তবে সংখ্যাগরিষ্ঠ সাধারণ মানুষ কিভাবে জীবন জীবিকা নির্বাহ করবে সেটা এখন সবচেয়ে বেশি ভয়ের কারণ। লগডাউন নিয়ে দেশের প্রতিটি জেলার ন্যায় বরিশালেও খেটে খাওয়া মানুষের মনে একই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে । কঠোর লগডাউনের কারণে হয়তো রাস্তা ঘাট জনশূন্য হয়ে যাবে। যার ফলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ রিক্সা, ভ্যাট, অটো, থ্রি হুইলার, বাসসহ সকল ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে এবং পরিবহন খাতের হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়বে।

গণপরিবহন শ্রমিক ছাড়াও ফুটপাতের ছোট ছোট ব্যবসায়ী, হকার, নাপিত, মুচিসহ সকল শ্রেণী পেশার মানুষ বেকার সমস্যা সৃষ্টি করবে। আর কর্মহীনতার কারণে দিনমজুর মানুষের ঘরে ঘরে অভাব অনটন দেখা দিবে।

যদিও লগডাউন বাস্তবায়ন, স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত ও জনগণের প্রয়োজনীয় খাদ্য সরবরাহ করাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সরকার। গত বছর লগডাউনের সময় সরকারের পক্ষ থেকে করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় প্রোনোদনা প্রদান, ১০ টাকা কেজিতে চাল বিক্রিসহ বিভিন্ন উপহার সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে।

এবছরও করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় প্রোনোদনা প্যাকেজ, টিসিবির পন্য বিক্রি, ওএমএসএস, ভিজিডির চাউল বিতরণসহ ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ সরকার। তবে সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সেই অর্থ মানুষের হাতে কতটুকু এসেছে অথবা আসবে এটা একটা বড় প্রশ্ন।

লগডাউন নিয়ে বরিশালের এক বাসিন্দা বলেন,, আমি গরীব মানুষ অটোরিকশা ভাড়ায় চালাই। প্রতিদিন গাড়ির মালিককে ভাড়া বাবদ জমা টাকা প্রদান করে ৫০০-৭০০ টাকা আয় হয় এবং আমার ৫ জনের সংসার পরিচালনা করি। কিন্তু যদি ১৪ তারিখ থেকে লগডাউন চলে তাহলে আমি বেকার হয়ে যাবো। তখন আমার স্ত্রী ছেলে -মেয়েকে কিভাবে দুবেলা খাবারের ব্যবস্থা করবো সেই চিন্তায় অস্থির হয়ে পড়েছি । কারণ আমাদের ব্যাংকে জমানো টাকা নাই যে বসে বসে খেতে পারবো।

বরিশাল নগরীর অন্য এক বাসিন্দা বলেন,, আমার ছোট্ট একটা চায়ের দোকান আছে। দেশ ১৪ তারিখ থেকে যদি লগডাউন করা হয় তখন আমাকে দোকান বন্ধ রাখতে হবে। আর হাতে টাকাই যদি না থাকে তখন চাউল ৫ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হলেও ক্রয় করতে পারবো না । সরকার যদিও বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করে থাকে কিন্তু দূর্নীতিবাজদের কারণে সেটা সবাই পায় না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক জনগণের জন্য প্রদানকৃত সব উপহার গরীব মানুষের কাছে আসার আগে লুটপাট হয়ে যায়।

লগডাউনের ঘোষণা নিয়ে সচেতন মহল বলেন,, জীবন বেঁচে থাকলে জীবীকা নির্বাহ করা যাবেই, তাই আগে জীবন বাঁচাতে হবে। মহামারী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও দেশের মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকার ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পুরোদেশ লগডাউন করার ঘোষণা দিয়েছে তা সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে । তবে ঘোষণা অনুযায়ী যদি দেশে লগডাউন কার্যকর করা হয় তাহলে আগে খেটে খাওয়া মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে। কারণ পেটে খুদা থাকলে মানুষ আর কোন আইন মানবে না তারা সবকিছু উপেক্ষা করে রাস্তায় বের হয়ে পড়বে। তখন জনগণের সাথে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে তর্ক-বিতর্ক এমন কি সংঘাত সৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়াও লগডাউনকালীন সময় সরকারের পক্ষ থেকে জনগণের উদ্দেশ্য প্রদান করা সকল উপহার যথাযথ ভাবে পৌঁছে দেয়া হয় কি-না সেটা কঠোর ভাবে মনিটরিং করতে হবে। গত বছর দেখা গেছে অনেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান-মেম্বার সরকারি সাহায্য মানুষের মাঝে বিতরণ না করে বিক্রি করে দিয়েছে।

সবচেয়ে বড় কথা লগডাউন পরবর্তী সময়ে যেন দেশে খাদ্য সংকট দেখা না দেয় এজন্য কৃষি খাতসহ উৎপাদন মূলক সকল কার্যক্রম চালু রাখতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। পাশাপাশি করেনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য দ্বায়িত্বশীল সবাইকে এক সাথে কাজ করতে হবে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© 2021 - All rights Reserved - BarishalNews24
Design and Developed by Sarjan Faraby