1. gazia229@gmail.com : admin :
সমাধানে ব্যর্থ প্রশাসন, ঝালকাঠিতে দ্বিতীয় দিনে ধর্মঘাট চলমান - BarishalNews24
শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন

সমাধানে ব্যর্থ প্রশাসন, ঝালকাঠিতে দ্বিতীয় দিনে ধর্মঘাট চলমান

প্রতিবেদক:
  • প্রকাশকাল: বুধবার, ২৪ মার্চ, ২০২১
  • ৪৯ বার দেখা হয়েছে

ঝালকাঠি মহাসড়কে বাস মালিক ও মাহিন্দ্রা চালকদের সংঘর্ষ, দফায় দফায় সড়ক অবরোধ,সমাধানে ব্যর্থ প্রশাসন

আল আমিন গাজী ॥ টানা দ্বিতীয় দিনের মত ঝালকাঠিসহ ৮টি রুটে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে বাস মালিক সমিতি। গতকাল এ ধর্মঘাট নিয়ে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সাথে দফায় দফায় দুই পক্ষর বৈঠক হলেও শেষ পযর্ন্ত তা সমাধান হয় নি।

বরিশাল ,পিরোজপুর ও ঝালকাঠি মহাসড়কে বাস মালিক সমিতি সদস্যরা ও মাহিন্দ্রা চালকদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করেন শ্রমিকরা। আর এতে করে নানা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন সাধারণ যাত্রীরা।

সরেজমিনে গিয়ে জানাযায়, গত ২২শে মার্চ রাত ৮টার সময় ঝালকাঠি বাস মালিক সদস্যরা ষাটপাকিয়া নামক স্থানে (আলফা-মাহিন্দ্রা) থামিয়ে চালকদের মারধর ও গাড়ি ভাংচুর করেন। পরবর্তীতে এখবর মাহিন্দ্রা চালকদের মাঝে ছড়িয়ে পড়লে চালকরা রুপাতলী বাস স্ট্যান্ডে গিয়ে ২টি বাস গাড়ির চাকার হাওয়া ছেড়ে দিয়ে প্রতিবাদ জানান।

মাহিন্দ্রা মাহিন্দ্রা শ্রমিকরা অভিযােগ করে জানান, ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির সদস্যরা মাহিন্দ্রা ও সিএনজি গাড়িতে হামলা ও চালককে মারধর করেন । পরে প্রায় ১৫টি গাড়ির টায়ার ও টিউব ভোড় দিয়ে ফুটো করেন তারা এবং যাত্রীদের হয়রানী ও চালকদের নানা ধরনের হুমকি প্রদান করেন।

জানাযায়, ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির সদস্যরা ষাটপাকিয়া নাম স্থানে অবৈধভাবে চেক পোষ্ট বসিয়ে সাধারণ যাত্রী থেকে শুরু করে থ্রি হুইলার (আলফা-মাহিন্দ্রা) চালকদের প্রতিনিয়ত মারধর ও গাড়ি ভাঙচুর করেন।

এরই ধারাবাহিকতায়, গত ২৩ মার্চ বিকেল ৪টা থকে রাত ১টা পর্যন্ত ঝালকাঠি সড়কে চলাচল প্রায় ৮টি মাহিন্দ্রা ভাঙচুর করেন বাস মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দরা। পরবর্তীতে সন্ধায় দিকে মাহিন্দ্রা চালকরা রুপাতলী গোলচত্তরে বাস মালিক সমিতির সদস্য কতৃক ভাঙচুর করা মাহিন্দ্রা দিয়ে সড়ক অবরোধ করেন।

এদিকে সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঝালকাঠিসহ ৮ রুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) সকাল থেকে এ ধর্মঘট শুরু হয়।

ঝালকাঠি জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক বাহাদুর চৌধুরীর কাছে জানতে চাইতে তিনি মাহিন্দ্রা ভাঙচুরের কথা অস্বিকার করে বলেন, সোমবার (২২ মার্চ) রাতে বরিশাল রূপাতলী বাসস্ট্যান্ডের শ্রমিকদের হামলায় ঝালকাঠির কয়েকজন বাস শ্রমিক আহত হন। এ ঘটনার প্রতিবাদ ও বিচার দাবিতে বরিশাল, ঝালকাঠি ও পিরোজপুরের বাস ও মিনিবাসের শ্রমিকরা একযোগে অনির্দিষ্টকালের জন্য এ ধর্মঘট ডেকেছেন।

এদিকে, ধর্মঘটের ফলে বরিশাল, পিরোজপুর ও ঝালকাঠির সঙ্গে প্রায় ৮ ঘন্টা বাস চলাচল বন্ধ ছিলো। ধর্মঘটের ফলে অসংখ্য যাত্রী বিপাকে পড়েছেন।

অপরদিকে সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল সকালে মাহিন্দ্রা শ্রমিকরা বাস মালিক সমিতির সদস্যদের গ্রেপ্তারের দাবিতে রুপাতলী সড়ক আবারো অবরোধ করেন। পরবর্তীতে প্রায় ২ঘন্টা পর বরিশাল মেট্রোপলিটন ট্রাফিক বিভাগ ও ঝালকাঠি ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তাদের আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেয় মাহিন্দ্রা শ্রমিকরা। তবে শ্রমিকরা ধর্মঘাট তুলে নিলেও বাস মালিক সমিতির ধর্মঘাট দ্বিতীয় দিনের মত চলমান রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মাহিন্দ্রা চালক বলেন, ঘরে ছোট একটা মেয়ে অসুস্থ । এই গাড়িটি ভাড়া চালাই । প্রতিদিনের মত রাত ৮টার সময় রুপাতলী থেকে ভান্ডারিয়া যাওয়ার সময় ষাটপাকিয়া্ নাম স্থানে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির নেতারা চেকপোষ্ট বসিয়ে গাড়ি থামায়। পরবর্তীতে মাহিন্দ্রা থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিয়ে গাড়ি টিউব ও টায়ার ফুটো করে দেয়। সেই সময় প্রতিবাদ করলে আমাকে সহ আরো ৮/৯জন চালক কে মারধর করেন।

তবে পথচারীদের ধারনা এরকম চলতে থাকলে যে কোন সময় মহাসড়কে বড় ধরনের সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়বে শ্রমিক ও বাস মালিকরা।

এবিষয় বিষয় মাহিন্দ্রা শ্রমিক নেতা সুমন মোল্লা বলেন, সন্ধ্যা ৭টার সময় প্রতিদিন রুপাতলী থেকে মাহিন্দ্রা চালকরা রাজাপুর,ভান্ডারিয়া, ঝালকাঠি যাত্রী বহন করেন। পরবর্তীতে গত ২২মার্চ বাস মালিক সমিতির লোকজন অবৈধ চেক পোস্ট দিয়ে প্রায় ২৫টি মাহিন্দ্রা ভাঙচুর করেন ও চালকদের মারধর করেন।

চালকরা তো আর গাড়ি ছাড়ার টাইমে যাত্রী বহন করে না। তা হলে বাস মালিক সমিতির লোকজন কেন গাড়ি ভাঙচুর করবে। শ্রমিকদের গাড়ির ক্ষতিপূরন দিতে হবে আর সড়কে চলাচল নিরাপদ করে মালিক সমিতির লিখিত দিতে হবে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© 2021 - All rights Reserved - BarishalNews24
Design and Developed by Sarjan Faraby